কার্তিকের দায়িত্ববোধ নিয়ে প্রশ্ন তুলে দিলেন নাইটদের প্রাক্তন অধিনায়ক গম্ভীর

কার্তিকের দায়িত্ববোধ নিয়ে প্রশ্ন তুলে দিলেন নাইটদের প্রাক্তন অধিনায়ক গম্ভীর
Image source - aajkaal

মাঝপথে কেকেআরের অধিনায়কত্ব ছেড়ে দিয়ে বড়সড় ভুল করেছেন দীনেশ কার্তিক। চেন্নাই সুপার কিংসের কাছে হারের পর কেকেআর তারকার দায়িত্ববোধ নিয়ে প্রশ্ন তুলে দিলেন গৌতম গম্ভীর। তিনি বলছেন, দীনেশ কার্তিকের উচিত ছিল, আরও দায়িত্ব নেওয়া। অনেক সময় বাড়তি দায়িত্ব ব্যাটিংয়ের উপকারই করে বলে মনে করেন গম্ভীর।

যুক্ত হন আমাদের সঙ্গে ফেসবুক পেজের মাধ্যমে

নাইটদের সফল অধিনায়ক বলছিলেন, ‘‌এতেই মানসিকতা বোঝা যায়। তুমি ব্যাটিংয়ে মনোযোগ দেবে বলে অধিনায়কত্ব ছাড়ছ। কিন্তু সেটা তো কাজে এল না। আমার মনে হয়, এর চেয়ে অনেক সময় দায়িত্ব নেওয়াটা ভাল। ২০১৪ সালে যখন আমার খুব খারাপ সময় যাচ্ছিল, আমি পরপর ৩টে শূন্য করেছিলাম, তখন অধিনায়কত্বই আমাকে ফর্মে ফিরিয়েছে।

কারণ, খারাপ ব্যাটিং করলেও আমি তখন ব্যাটিং নিয়ে ভাবতাম না। ভাবতাম, কীভাবে দলকে ভাল অধিনায়কত্বের মাধ্যমে জেতানো যায়। কিন্তু তুমি যখন ক্যাপ্টেন থাকো না, তখন তোমার ব্যাটিং নিয়ে ভাবনা আরও বেড়ে যায়।’‌ গম্ভীরের মতে আইপিএলের মাঝপথে এভাবে অধিনায়কত্ব ছাড়াটা নেহাতই কার্তিকের বোকামি।


আরও পড়ুন : ৪৮ বছর পর নাকি ধ্বংস হবে পৃথিবী, ধেয়ে আসছে ৩টি ফুটবল মাঠের আকার সমান বিশাল এক গ্রহাণু


টুর্নামেন্টের মাঝপথে অধিনায়কত্ব ছেড়েছিলেন দীনেশ কার্তিক। তাঁর অধিনায়কত্ব নিয়েও বিস্তর প্রশ্ন উঠছিল। বিশ্বজয়ী অধিনায়ক ইওন মর্গ্যানের হাতে দলের ব্যাটন গেলে, সেসব ভুলভ্রান্তিও কম হবে। কিন্তু টুর্নামেন্টের শেষলগ্নে এসে দেখা যাচ্ছে দুটোর কোনওটাই ঠিক হল না। না কার্তিক ব্যাট হাতে নিজের ফর্ম ফিরে পেলেন। আর না দলের পারফরম্যান্সের উন্নতি হল। উল্টে দীর্ঘ সময় পয়েন্ট টেবিলের চার নম্বরে থাকা কলকাতার প্লে–অফে ওঠার সম্ভাবনা একেবারে ক্ষীণ হয়ে গেল।

কার্তিক অধিনায়কত্ব ছাড়ার সময় ৬ ম্যাচের মধ্যে ৪টিতে জিতেছিল নাইটরা। পয়েন্ট টেবিলে ছিল ৪ নম্বরে। তার পরবর্তী সাত ম্যাচে মাত্র ২টি ম্যাচ দলকে জেতাতে পেরেছেন মর্গ্যান। টুর্নামেন্টের মাঝখানে এভাবে কেকেআরের অধিনায়ক বদলের সিদ্ধান্ত তাই মেনে নিতে পারছেন না নাইটদের সবেচেয়ে সফল অধিনায়ক গৌতম গম্ভীর। দীনেশ কার্তিকের দায়িত্ববোধ নিয়েই প্রশ্ন তুলে দিলেন তিনি।

যুক্ত হন আমাদের সঙ্গে ফেসবুক পেজের মাধ্যমে


সুত্র : আজকাল

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য