১৪ই সেপ্টেম্বর থেকে চালু হচ্ছে মেট্রো। ভিড় এড়াতে মোবাইল অ্যাপে কাটতে হবে ই-পাস (E-Pass). কীভাবে? জেনে নিন

 

১৪ই সেপ্টেম্বর থেকে চালু হচ্ছে মেট্রো। ভিড় এড়াতে মোবাইল অ্যাপে কাটতে হবে ই-পাস (E-Pass). কীভাবে? জেনে নিন
Image credit - indianexpress

অবশেষে ১৪ই সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হচ্ছে মেট্রো পরিষেবা। ভিড় সামলাতে থাকছে মোবাইল অ্যাপের মাধ্যমে ই-পাস (E-Pass) এর ব্যবস্থা করা হচ্ছে। অ্যাপ তৈরি ও পরিচালনার দায়িত্ব পরিবহন দপ্তরের হাতে। আপাতত কবি সুভাষ থেকে নোয়াপাড়া পর্যন্ত চলবে মেট্রো। ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রো এখনই চলবে না এমনটাই জানা গেছে। রাজ্য সরকার ও মেট্রো কর্তৃপক্ষের বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

প্রত্যেক যাত্রীর ক্ষেত্রে মেট্রোতে ঢোকার মুখেই দেখাতে হবে ই-পাস এবং স্মার্টকার্ড। 

এই E-Pass কী জিনিস? যারা মেট্রোতে যাতায়াতের কথা ভাবছেন বা মেট্রো যাত্রী তারা জেনে রাখুন ই-পাস হল ইলেক্ট্রনিক পাস বা টিকিট যা দেখাতে হবে যেকোনো মেট্রো স্টেশনের প্রবেশের মুখে। ই-পাস থাকতে পারে আপনার মোবাইলে অথবা ল্যাপটপ বা কম্পিউটারের মাধ্যমে অনলাইনে অ্যাপের মাধ্যমে বুক করে প্রিন্ট করেও রাখতে পারেন।

এক্ষেত্রে প্রত্যেক ঘণ্টার জন্য আলাদা করে ই-পাস দেওয়া হবে। যেমন ৪টে থেকে ৫টার জন্য একটা ই-পাস, ৫টা থেকে ৬টার জন্য একটা ই-পাস, ৬টা থেকে ৭টার জন্য একটা ই-পাস এইভাবে ইস্যু করা হবে। প্রত্যেকটি ই-পাস কিন্তু অনলাইনে অ্যাপ থেকে জেনারেট করতে হবে এবং এর মধ্যে যে সময়ে কাটা হবে সেই টাইম স্লটের উল্লেখ থাকবে। কোন দিন তার উল্লেখ থাকবে। পাশাপাশি এতে আলাদা আলাদা সময়ের জন্য ব্যবহার হবে আলাদা রঙের ব্যান্ড যেমন ধরা যাক ৬টা থেকে ৭টার জন্য লাল এবং ৭টা থেকে ৮টার জন্য সাদা অথবা সবুজ।

ই-পাস পাওয়া যাবে কীভাবে? পাস পাওয়া যাবে 'পথদিশা' অ্যাপ থেকে এবং মেট্রোর যে অ্যাপ আছে সেখান থেকেও। এছাড়াও মেট্রোর ওয়েবসাইট থেকেও এই ই-পাস পাওয়া যাবে।

কখন একজন যাত্রী ই-পাস পাবেন? একজন যাত্রী যে সময়ের ই-পাস পেতে চান তার ৫ থেকে  ৬ ঘণ্টা আগে এর বুকিং এর জন্য আবেদন করতে পারবেন। যেমন দুরপাল্লার ট্রেনের রিসার্ভেশন টিকিট ১২০ দিন আগে থেকে কাটতে হয়।

কী হবে মেট্রোতে ওঠার প্রক্রিয়া?

ই-পাস পাওয়ার পর যাত্রী তার ট্রেনে ওঠার নির্দিষ্ট সময়ের কিছু আগে তিনি তা মেট্রোর গেটে দেখিয়ে ভেতরে ঢুকবেন। এখন তার কাছে যদি স্মার্ট কার্ড থাকে তাহলে তিনি গেট থেকে ভেতরে ঢোকার পর স্যানিটাইজেশন ও চেকিং প্রক্রিয়ার পর সোজা চলে যাবেন প্লাটফর্মের কাছে। এরপর স্মার্টকার্ড পাঞ্চ করে প্লাটফর্মে ঢুকে যে ট্রেনে যেতে চান সেই ট্রেনে উঠবেন।

কারোর কাছে স্মার্টকার্ড না থাকলে কি হবে? সেক্ষেত্রে ই-পাস দেখিয়ে ভেতরে ঢোকার পর টিকিট কাউন্টারে চলে যাবেন সেখান থেকে স্মার্টকার্ড নেবেন। চেকিং প্রক্রিয়ার পর তিনি সেই স্মার্টকার্ড পাঞ্চ করে প্লাটফর্মে ঢুকে পরবেন।

অর্থাৎ মেট্রোতে ওঠার জন্য কিন্তু ই-পাস এবং স্মার্টকার্ড দুটোই থাকা জরুরি।

সবাই কী ই-পাস পাবেন? এর উত্তর না। মেট্রো কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে তারা প্রতি ট্রেনে ৪০০ জনের বেশি যাত্রী নেবে না এবং সারা দিনে তারা ১১০ টি ট্রেন চালাবে। অফিস টাইম অর্থাৎ সকাল ১১.৩০ টা পর্যন্ত ১০ মিনিট অন্তর ট্রেন চলবে এবং ১১.৩০ এর পর থেকে চলবে ১৫ মিনিট অন্তর। আবার বিকাল ৪.৩০ থেকে ১০ মিনিট অন্তর ট্রেন চলা শুরু হবে।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য